• রবিবার, ২০ জুন ২০২১, ০৬:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম
লক্ষীপুর-২ ( রায়পুর) জাতীয় সংসদের উপ-নির্বাচনে সর্বশেষ নির্বাচনী আলোচনা সভা। ৭২ ৩ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে দালাল বাজার কলেজ মাঠ প্রাঙ্গণে আলোচনা সভা। এডভোকেট নুর উদ্দীন চৌধুরী নয়ন এর নৌকার সমর্থনে ৫নং ওয়ার্ডের নির্বাচনী প্রচারনার সময় লক্ষীপুর-২ আসনের উপ-নিবাচন ২১ জুন,২০২১। ১নং উওর হামছাদী ইউনিয়ন ৫নং ওয়ার্ডেের পূর্ব হাসন্দী সাধারণ জনগনের দ্বার প্রান্তে গিয়ে নির্বাচনী প্রচারণার সময়। পূর্ব হাসন্দী ৫নং ওয়ার্ডে সাধারণ জনগনের দ্বার প্রান্তে নির্বাচনী প্রচারণার সময়। পূর্ব হাসন্দী ৫নং ওয়ার্ডে সাধারণ জনগনের দ্বার প্রান্তে ভোট চাওয়ার সময়। এডভোকেট নুর উদ্দীন চৌধুরী নয়ন এর নৌকার সমর্থনে ১ নং উত্তর হামছাদী ইউনিয়ন উঠান বৈঠক। ৫ নং ওয়ার্ড কেন্দ্রিক কেন্দ্র কমিটি গঠন ও বিভিন্ন দিক নিদের্শক মূলক আলোচনা। লক্ষীপুর মডেল থানার ওসি জসিম উদ্দিন চট্টগ্রাম রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ।
ব্রেকিং নিউজ
লক্ষীপুর-২ আসনের উপ-নিবাচন ২১ জুন,২০২১। গত ২৪ ঘন্টা একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু সংখ্যা ৭৭, এবং করোনা শনাক্ত হয়েছে ৫,৩৪৩ লক্ষীপুরে মেঘনা ফেরীতে আগুন, পুড়ে গেছে অনেক মালামাল ও ৬টি যানবাহন। সীমিত পরিসরে এভারের লকডাউনে আদালত চলবে। রমজান মাসে সরকারি অফিস চলবে ৯টা থেকে সাড়ে ৩টা। ঢাকা-১৪ আসনের সংসদ সদস্য আসলামুল হক এম.পি আর নেই। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন আগামী ৫এপ্রিল থেকে এক সপ্তাহ ফের লকডাউন সারা বাংলাদেশ, এক প্রেস ব্রিফিং এ–ওবায়দুল কাদের। দেশের ৩১ জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঝুকিতে লক্ষীপুর। গত ২৪ ঘন্টা করোনা শনাক্ত লক্ষীপুর-১০ সামাজিক অনুষ্ঠান, বিনোদন কেন্দ্র, মেলা বন্ধের সুপারিশ কারিগরি পরামর্শক কমিটির। লক্ষ্মীপুর জেলার রামগতি আলেকজান্ডারে আবারও ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড। ৬৩ দোকান ক্ষতিগ্রস্ত।

বনানীতে চিরনিদ্রায় শায়িত ব্যারিস্টার রফিক উল হক

অনলাইন ডেস্ক / ৮৬ বার
প্রকাশ হয়েছে : শনিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২০

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সুপ্রিমকোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ও সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক-উল হক। সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতি প্রাঙ্গণে তৃতীয় জানাজা শেষে শনিবার বেলা ৩টায় বনানীর কবরস্থানে রফিক-উল হকের দাফন সম্পন্ন হয়। তৃতীয় জানাজায় প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, রেল মন্ত্রী অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম সুজন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার ফজলে নুর তাপস, অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন, সাবেক আইনমন্ত্রী আব্দুল মতিন খসরুসহ সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি ও আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন।
জানাজা শেষে মরদেহে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করা হয়। এসময় ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান ল’ রিপোর্টার্স ফোরাম। এর আগে সকাল পোনে ১১টায় আদ-দ্বীন হাসপাতালে প্রথম জানাজার পর বাদ জোহর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে শনিবার সকাল সাড়ে ৮টায় রাজধানীর আদ দ্বীন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রফিক-উল হক মারা যান। মৃত্যুকালে এই আইনজীবীর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। প্রবীণ এই আইনজীবীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেন রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, প্রধান বিচারপতি, আইনমন্ত্রী, অ্যাটর্নি জেনারেলসহ, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সামাজিক সংগঠন।
জ্যেষ্ঠ এই আইনজীবীকে যখন শেষ বিদায় জানানো হচ্ছিল তখন বৃষ্টিভেজা চারপাশ আর অশ্রুভেজা চোখ যেন মিলেমিশে একাকার। জানাজা শেষে রফিক উল হকের মরদেহ বনানী কবরস্থানে দাফনের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হয়। স্ত্রী ডা. ফরিদা হকের কবরের পাশে বনানীতে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন ব্যারিস্টার রফিক উল হক।
অজানা অধ্যায় : ব্রিটিশ ভারতে ১৯৩৫ সালের ২ নভেম্বর কলকাতায় জন্ম ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের। তার শৈশব থেকে শুরু করে শিক্ষা জীবনের প্রায় পুরোটাই কলকাতায় কেটেছে। পরে লন্ডনে ব্যারিস্টারি পড়া শেষ করে পাকিস্তানের নাগরিকত্ব নিয়ে ঢাকায় চলে আসেন তিনি। সেদিক থেকে বিবেচনা করলে চার দেশের নাগরিক হতে হয়েছে তাকে।
কলকাতায় ইসলামিয়া কলেজে পড়ার সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সংস্পর্শে আসেন রফিক-উল হক। বেকার হোস্টেলে যে কক্ষে বঙ্গবন্ধু থাকতেন তার পাশের কক্ষেই থাকতেন তিনি। এরপর কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়ও কারমাইকেল হোস্টেলে কিছুদিন বঙ্গবন্ধুর সহচর্যে তিনি ছিলেন।
ছাত্র জীবন থেকেই অসামান্য মেধাবী ছিলেন রফিক-উল হক। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন পড়ার সময় কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছিলেন। ক্রিমিনাল ল-তে প্রথম হয়ে স্বর্ণ পদক পেয়েছিলেন তিনি। হিন্দু ল নিয়ে ব্যারিস্টারি পড়েছেন। সেখানেও দ্বিতীয় হতে হয়নি তাকে। সপ্তাহান্তে খ-কালীন চাকরি করে ব্যারিস্টারি পড়ার খরচ চালিয়েছেন। স্বাভাবিক গতিতে তিন বছরে ব্যারিস্টারি শেষ করার কথা থাকলেও মাত্র দেড় বছরের মধ্যে সবগুলো কোর্সে পাস করেছিলেন। তাকে দিয়েই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে হিন্দু ল পড়ানো শুরু হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশাপাশি রাজশাহী ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে পরীক্ষক হিসেবে তিনি কাজ করেছেন।
পারিবারিক ঐতিহ্য থেকে ছাত্রজীবনে রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হন রফিক-উল হক। বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচনে পর পর দুবার জিতেছিলেন তিনি। সোশ্যাল সেক্রেটারি হয়েছিলেন। পরে পশ্চিমবঙ্গ যুব কংগ্রেসের ভাইস প্রেসিডেন্ট হন। তখন ইন্দিরা গান্ধী ছিলেন কেন্দ্রীয় যুব কংগ্রেসের সভাপতি। রাজনীতির সূত্রে ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে বহুবার দেখা হয়েছে, সুযোগ পেয়েছেন একসঙ্গে কাজ করার।
ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের বাবা মুমিন উল হক পেশায় ডাক্তার হলেও চব্বিশ পরগনা মিউনিসিপালিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। কলকাতা শহরও তখন এর অন্তর্গত ছিল। তিনি চব্বিশ পরগনা জেলা মুসলিম লিগের সভাপতি ছিলেন। ডাক্তারি, জমিদারি ছেড়ে গণমানুষের জন্য রাজনীতি করতে গিয়ে নিঃস্ব হতে হয়েছিল তাকে।
ঢাকার ফার্মগেটে ইসলামিয়া চক্ষু হাসপাতাল ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের দাদার গড়া প্রতিষ্ঠান। ঢাকা শিশু হাসপাতাল গড়ে তোলায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন ব্যরিস্টার রফিক-উল। এই হাসপাতালের জমি বরাদ্দ দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। লটারির টিকিট বিক্রি করে এই হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার খরচের বড় একটা অংশ সংগ্রহ করেন তিনি। এছাড়া সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কাছে কোনো ফি নিতেন না বলে এই হাসপাতালের জন্য আশির দশকে ৫০ লাখ টাকা অনুদান পেয়েছিলেন। শিশু হাসপাতাল ছাড়াও সুবর্ণ ক্লিনিক, আদ-দ্বীন, বারডেম, আহসানিয়া মিশনি ক্যান্সার হাসপাতালসহ অনেক চিকিৎসাধর্মী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জড়িয়ে ছিলেন তিনি। নিজের উপার্জিত অর্থে গাজীপুরের চন্দ্রায় ১০০ শয্যার সুবর্ণ-ইব্রাহিম জেনারেল হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেছেন।
আইনজীবী হয়েও পারিবারিক কারণে চিকিৎসা পেশার সঙ্গে গভীর সংযোগ ছিল ব্যারিস্টার রফিক-উলের। তার বাবা ছাড়াও স্ত্রী ফরিদা হকও ডাক্তার ছিলেন। ১৯৬০ সালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন তারা। এ ছাড়া রফিক-উল হকের ভাই-বোনদের মধ্যে বেশিরভাগই ছিলেন ডাক্তার। বিশ্ব থেকে গুটি বসন্ত রোগ নির্মূলে বিশেষ অবদান ছিল ডা. ফরিদা হকের। এ জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা স্বর্ণ পদক দিয়ে তাকে সম্মানিত করেছিল। কাউ পক্স নির্মূলের জন্য বিশেষজ্ঞ হিসেবে রাশিয়া ও মঙ্গোলিয়ায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল তাকে।
১৯৯০ সালে ব্যারিস্টার রফিক-উল হক বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল নিযুক্ত হয়েছিলেন। তবে সরকারের সর্বোচ্চ আইন কর্মকর্তা হয়েও কোনো বেতন নেননি তিনি। ১৯৬০ সালে কলকাতায় প্রথম মামলা থেকে শুরু করে মাঝে দীর্ঘ ৬০ বছর আইন পেশায় যুক্ত থেকেছেন। এর মধ্যে ১/১১ এর সময় শেখ হাসিনা ও খালেদা জিয়া দুজনেরই আইনজীবী হিসেবে কাজ করেছেন তিনি।
ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের একমাত্র ছেলে ব্যারিস্টার ফাহিম-উল হকও আইন পেশায় যুক্ত। পুত্রবধূ রোকেয়া হকও যুক্ত রয়েছেন একই পেশায়। আইন পেশায় প্রচুর অর্থবিত্তের মালিক হওয়ার সুযোগ থাকলেও বস্তুগত বিষয়ে কখনোই আগ্রহ ছিল না ব্যারিস্টার রফিক-উলের। নিজের ও স্ত্রীর উপার্জিত প্রায় সব টাকা মানব সেবায় দান করে দিয়েছেন। সম্পদ বলতে যে বাড়িটিতে তিনি থাকতেন তা তার শাশুড়ি মেয়েকে দিয়েছিলেন। এ ছাড়া ঢাকায় আর দুটি ফ্ল্যাট তার নামে আছে। এখান থেকে পাওয়া ভাড়ার টাকায় শেষ জীবনের খরচ চালিয়েছেন তিনি।
রফিক-উল হকেরা চার ভাই-বোন। আপন তিন ভাই। বড় ভাই পুলিশ কমিশনার ছিলেন। মেজ ভাই ছিলেন ডাক্তার। একমাত্র বোনও মারা গেছেন বেশ আগেই। তাদের সবার মৃত্যুর কারণ ছিল ক্যানসার। দেশের দুই প্রধান দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেত্রীদ্বয়ের আইনজীবী হিসেবে কাজ করেছেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক। সব সময়ই তিনি দুই নেত্রীর মধ্যে বৈরি সম্পর্কের অবসান চেয়েছিলেন। এই আক্ষেপ সঙ্গে নিয়েই বিদায় নিতে হলো তাকে।
ব্যারিস্টার রফিক উল হকের জন্ম ১৯৩৫ সালের ২ নভেম্বর কলকাতার সুবর্ণপুর গ্রামে। ১৯৫৫ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক, ১৯৫৭ সালে দর্শন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। ১৯৫৮ সালে এলএলবি পাস করেন। ১৯৬২ সালে যুক্তরাজ্য থেকে বার অ্যাট ল সম্পন্ন করেন। ১৯৬৫ সালে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হিসেবে এবং ১৯৭৩ সালে আপিল বিভাগে আইনজীবী হিসেবে আইন পেশা শুরু করেন।
বিগত সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্ত করতে আইনি লড়াই করেন তিনি। দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ও ভাবমূর্তি রক্ষায় বরাবরই সোচ্চার রফিক উল হক। দেশের অনেক গুরুত্বপূর্ণ সাংবিধানিক ও আইনি বিষয় নিয়ে সরকারকে সহযোগিতা করেছেন বর্ষীয়ান এই আইনজীবী।
১৯৯০ সালের ৭ এপ্রিল থেকে ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন রফিক উল হক। এ সময়ে তিনি কোনও সম্মানী নেননি। পেশাগত জীবনে তিনি কখনও কোনও রাজনৈতিক দল করেননি। তবে নানা সময়ে রাজনীতিবিদরা সব সময় তাকে পাশে পেয়েছেন। ব্যারিস্টার রফিক উল হক তার জীবনের উপার্জিত অর্থের প্রায় সবই ব্যয় করেছেন মানুষের কল্যাণ ও সমাজসেবায়।


এ জাতীয় আরো খবর